You are here
Home > news >

করোনায় মারা যেতে পারে ২০ লাখ মানুষ: বিশ্ব স্বাস্হ্য সংস্হা

গাজীপুরে একই ঘরে স্বামী-স্ত্রী ও মেয়ের লাশ

গাজীপুর মহানগরের পানিশাইল এলাকার একটি বাড়িতে একই ঘরে তিনজনের লাশ পাওয়া গেছে।

আজ মঙ্গলবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে পুলিশ।

 

গাজীপুরে একই ঘর থেকে স্বামী-স্ত্রী ও মেয়ের লাশ উদ্ধার হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে সিটি করপোরেশনের কাশিমপুর থানাধীন পানিশাইল এলাকা থেকে লাশ তিনটি উদ্ধার করে পুলিশ। গতকাল সোমবার রাতের কোনো এক সময় ঘটনাটি ঘটেছে বলে মনে করছে তারা।

ওই তিনজন হলেন পানিশাইল এলাকার মোশারফ হোসেন (২৮), তাঁর স্ত্রী হোসনে আরা (২২) এবং এই দম্পতির মেয়ে মোহিনী (২ মাস)। মোশারফের রংপুরের পীরগাছা উপজেলার ফকিরতরি এলাকায়। তিনি পরিবার নিয়ে পানিশাইল এলাকার ওই বাসায় ভাড়ায় থাকতেন। সেখান থেকেই লাশ তিনটি উদ্ধার হয়েছে।

 

বাড়ির তত্ত্বাবধায়ক কবির হোসেন বলেন, পানিশাইল এলাকার এই বাড়িটির মালিক সাদেক আলীর নামের এক ব্যক্তি। ওই বাড়ির একটি বাসা ভাড়া করা পরিবার নিয়ে থাকতেন মোশারফ হোসেন। প্রতিদিনের মতো সোমবার রাতে তাঁরা ঘুমিয়ে পড়েন। আজ মঙ্গলবার সকালে তাঁদের ঘরের দরজা খুলতে দেরি হচ্ছিল। এ অবস্থায় বাসার অন্য লোকজন তাঁদের ডাকাডাকি করেন। কিন্তু ওই ঘরের ভেতর থেকে তাঁদের কোনো সাড়াশব্দ পাওয়া যায়নি। ঘরের ভেতর থেকে বিষের গন্ধ বের হচ্ছিল। ফলে স্থানীয় লোকজন বিষয়টি ফোন করে থানা-পুলিশকে অবহিত করে। খবর পেয়ে কাশিমপুর থানা থেকে একদল পুলিশ সকাল সাড়ে নয়টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।

করোনায় মারা যেতে পারে ২০ লাখ মানুষ: বিশ্ব স্বাস্হ্য সংস্হা

 

Corona Latest News .. পটুয়াখালী শহর ও শহরতলীতে দুজনের মৃত্যুর পর দুটি বাড়ি লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। রোববার (২৯ মার্চ) দুপুরে বাড়ি দুটি লকডাউন করা হয়।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, শনিবার (২৮ মার্চ) বিকেলে শহরের (মাদবর বাড়ি) ওই এলাকায় আ. রশিদ নামের ৬৫ বছরের এক বৃদ্ধ জন্ডিসসহ নানা সমস্যায় ভুগে নিজ গৃহে মারা যান। পরবর্তীতে স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তার মৃত্যু করোনা ভাইরাসে কিনা সেটা নিশ্চিত করার জন্য রাতে তার নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়। পরে রাত ১০টার দিকে দাফন সম্পন্ন হয়। রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত ওই বাড়িটি জেলা প্রশাসনের নির্দেশ ক্রমে লকডাউন করা হয়।

অপরদিকে সদর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, সদর উপজেলার টাউন বহালগাছিয়া এলাকার মো. জাকির হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে শনিবার বিকেলে পটুয়াখালীর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল থেকে বরিশাল শেবাচিমের আইসোলেশনে ভর্তির পর রাতে তিনি মারা যান। যে কারণে তার বাড়ি লকডাউন করা হয়।

বরিশাল মেডিকেলের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন সাংবাদিকদের জানান, তিনি শাসকষ্ট, জ্বর ও সর্দিকাশি নিয়ে বরিশাল হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। তার মৃত্যু করোনায় কিনা সেটা বলা যাচ্ছে না, কারণ বরিশালে করোনা ভাইরাস পরীক্ষার কোনো ব্যবস্থা নেই।
 
Corona Latest News
resultexplore
😎😎Don’t try to be like me. Try to be like yourself. Try to be very good at being yourself.😎😎

Leave a Reply

Top